নিরাপত্তার স্বার্থে গুলশানে গণপরিহণ বন্ধ,বিশেষ পরিবহণ চলবে

ঢাকা থেকে জেসমিন পাপড়ি
2016.07.22
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
20160722-DhakTraffic1000.jpg ঢাকার একটি ব্যস্ততম সড়কের চিত্র।নিরাপত্তার স্বার্থে গুলশান এলাকায় সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ করা হয়েছে। জুলাই ২২, ২০১৬।
বেনার নিউজ

জঙ্গি হামলার পর গুলশানের কূটনৈতিক এলাকার নিরাপত্তায় বিশেষ জোর দিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এর অংশ হিসেবে এসব এলাকায় গণপরিবহন প্রবেশ বন্ধের পাশাপাশি যাতায়াতকারীদের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে বিশেষ বাস ও রিকশা নামানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে এই এলাকায় হেঁটে প্রবেশের পথও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এমন পদক্ষেপে পথচারীরা বিপাকে পড়লেও নিরাপত্তার প্রয়োজনে এসব সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক বলে করছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। এই সিদ্ধান্তকে সময়ের প্রয়োজন হিসেবেই দেখছেন তাঁরা।

গুলশানে ৩০ টি এসি বাস, ২০০ রিকশা

গুলশানের কূটনীতিক জোনের নিরাপত্তার স্বার্থে ওই এলাকায় ৩০টি এসি বাস ও ২০০ বিশেষ রংয়ের রিকশা নামানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, কিছুদিনের মধ্যেই গুলশান এলাকায় ৩০টি এসি বাস নামানো হবে। একইসঙ্গে দুইশ রিকশাও নামবে। শুধু গুলশানে চলার অনুমতি পাওয়া এসব রিকশা সাধারণ রিকশার চেয়ে ভিন্ন রংয়ের হবে।

ডিএমপি কমিশনার আরো জানান, নিরাপত্তার প্রয়োজনে গুলশান, বনানী এবং বারিধারার মধ্যকার অলিগলি পথগুলোর বেশিরভাগই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং সিসিটিভির আওতায় আনা হয়েছে। সরানো হয়েছে পাবলিক বাস, রিকশাসহ বিভিন্ন ধরনের গনপরিবহন।

ওই এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে ঢেলে সাজানো হয়েছে জানিয়ে আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, “বিদেশি এবং কূটনীতিকদের জন্য প্রয়োজনীয় সব নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।”

এদিকে গুলশান এলাকার বিভিন্ন রাস্তায় পাবলিক বাস চলাচল বন্ধ করায় কিছুটা বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। দ্বিগুন টাকা খরচ করেও গন্তব্যে পৌঁছাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে তাঁদের।

এ বিষয়ে গুলশানে নিয়িমিত যাতায়াত করা ব্যক্তি রাজীব ব্যানার্জি বেনারকে বলেন, “বনানী থেকে প্রতিদিন আমার কর্মস্থল বাড্ডা যেতে হয়। আগে একবার রিকশা বদলালেই যাওয়া যেত। এখন বিভিন্ন রাস্তা যেমন বন্ধ, রিকশা চলাচলও সীমিত। ফলে নিত্য দিনের যাতায়াতে নতুন কষ্ট যোগ হয়েছে।”

তবে নিরাপত্তা জনিত কারণে এই সাময়িক সমস্যা মেনে নেওয়ার কথা জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এ প্রসঙ্গে বনানী এলাকায় বসবাসকারী আইনজীবী আখতার হামিদ বেনারকে বলেন, “গুলশান, বনানী ও বারিধারা এলাকাগুলো জঙ্গিদের টার্গেটে রয়েছে। সরকারের কাছেও নিশ্চয়ই এসব বিষয়ে তথ্য রয়েছে। এ কারণেই এসব এলাকার নিরাপত্তায় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। জাতীয় নিরাপত্তার বৃহত্তর স্বার্থে কিছু ভোগান্তি হলেও আমাদের সকলেরই এ সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া উচিত।”

তবে নতুন বাস ও রিকশা চালু করা হলে মানুষের ভোগান্তি কমে আসবে জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার। তিনি বেনারকে বলেন, “নিরাপত্তার স্বার্থে সকল নাগরিককে আমাদের নির্দেশনা মেনে চলার আহবান জানাচ্ছি। আমরা সকলে মিলেই এই সমস্যার মোকাবিলা করব।”

ডিএনএ নমুনা এফবিআইয়ের কাছে

গত ১ জুলাই গুলশানের রেস্তোরাঁয় হামলার পর সেনা কমান্ডো অভিযানে নিহত পাঁচ জঙ্গি ও একজন সন্দেহভাজনের ডিএনএ নমুনা পরীক্ষার জন্য এফবিআইকে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মো. মাসুদুর রহমান জানান, শুক্রবার ভোরে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের তদন্ত কর্মকর্তা এফবিআইয়ের প্রতিনিধিদের কাছে এসব ডিএনএ নমুনা হস্তান্তর করেন।

এর আগে এদের প্রত্যেকের দেহ থেকে গত বুধবার দ্বিতীয় দফায় ২০ মিলিলিটার করে রক্ত ও ত্রিশটি করে চুল সংগ্রহের কথা জানিয়েছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ।

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করে হামলাকারীরা। ওই ঘটনায় দুইজন পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। পরে সশস্ত্র বাহিনী অভিযান চালিয়ে রেস্তোরাঁর নিয়ন্ত্রণ নেয়।

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।