সমকামী বিষয়ক পত্রিকার সম্পাদক জুলহাস ও তাঁর বন্ধু খুন

ঢাকা থেকে জেসমিন পাপড়ি
2016.04.25
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
160425_BD_MURDER_620.jpg ঢাকায় নিজ বাসায় খুন হওয়া সাবেক মার্কিন দূতাবাস কর্মী ও সমকামী বিষয়ক পত্রিকা এলজিবিটি- এর সম্পাদক জুলহাস মান্নান ও তার বন্ধুর মৃতদেহ বাসা থেকে নামিয়ে আনা হচ্ছে। এপ্রিল ২৫,২০১৬।
এএফপি

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক খুন হওয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই ঢাকায় অজ্ঞাত দুবৃত্তদের হাতে এবার দিনদুপুরে খুন হলেন সমকামী অধিকার কর্মীসহ দুই ব্যক্তি। তাঁদেরকে ঘরে ঢুকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

নিহতদের একজন জুলহাস মান্নান যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য সংস্থা ইউএসএআইডির কর্মকর্তা ছিলেন। এ ছাড়া তিনি ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সাবেক প্রটোকল কর্মকর্তা ছিলেন।

নিহত অন্যজনের নাম মাহবুব তনয় বলে জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার রুহুল আমিন সাগর। পুলিশের ধারণা তিনি জুলহাসের বন্ধু।

নিহত জুলহাস সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সরকারি দল আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনির খালাতো ভাই বলেও জানা যায়।

নিহত জুলহাস মান্নান সমকামীদের অধিকারের দাবিতে সোচ্চার ছিলেন। তিনি লিঙ্গ সমতা প্রতিষ্ঠার পক্ষে ‘রূপবান’ নামে একটি সাময়িকী সম্পাদনায় যুক্ত ছিলেন। পত্রিকাটি লেসবিয়ান, গে, বাই সেক্সুয়াল ও ট্রান্সজেন্ডার (এলজিবিটি) ইস্যুতে কাজ করে। এটা সমকামী বিষয়ক বাংলাদেশের প্রথম সাময়িকী।

জোড়া খুন করে বের হওয়ার সময় দুর্বৃত্তরা পারভেজ মোল্লা নামে আরেক পাহারাদারকে কুপিয়ে রেখে যায়। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এদিকে খুনিদের বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানাতে পারেনি পুলিশ। এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের দায়ও স্বীকার করেনি কোনো গোষ্ঠী।

“এটি পূর্বপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। কিছু গুরুত্বপূর্ণ আলামত পাওয়া গেছে। সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে,” ঘটনাস্থলে গিয়ে সাংবাদিক​দের জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

রাজধানীর কলাবাগানের উত্তর ধানমন্ডির তেঁতুল গলি এলাকার ৩৫ নম্বর বাসায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় পার্সেল দেওয়া কথা বলে জোর করে ঘরে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা। এপর কুপিয়ে দুজনকে হত্যা করে।”

স্থানীয়রা জানান, বিকেল পাঁচটার দিকে হঠাৎ ওই বাসা থেকে চিৎকার-চেঁচামেচি শোনা যায়। এরপরপরই অন্তত পাঁচ যুবককে ওই বাসা থেকে দ্রুত বের হয়ে যেতে দেখা যায়। মাত্র পাঁচ মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে এ দুটি হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়।

দৌড়ানোর সময় সামনে পড়া কলাবাগান থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মমতাজকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের গোলাগুলি হয়।

কলাবাগান থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাবিবুর রহমান বেনারকে বলেন, “নিহতদের বয়স আনুমানিক ৩৫ বছর। বাসাটিতে একজন গৃহকর্মীসহ জুলহাস ও তাঁর মা বসবাস করতেন। দরজা খোলার পর কিছু বুঝে ওঠার আগেই জোর করে ভেতরে ঢুকে দুজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে তারা।”

তিনি জানান, দুর্বৃত্তরা দ্রুত বেরিয়ে যাওয়ার সময় বাসার নিরাপত্তাকর্মী তাদের বাধা দিলে, তাকেও মারধর করে। এসময় স্থানীয় লোকজন তাদের ধাওয়া করলেও তারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

জুলহাস হত্যার ঘটনায় দেশে নিন্দা-প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। হত্যাকারীদের আটক করে বিচারের মুখোমুখি করার দাবিও জানানো হচ্ছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আলী আর রাজী লিখেছেন, “কী ভয়ংকর রক্তহীম করা সব কাণ্ডকারখানা একের পর এক ঘটে চলেছে! এমন নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতিতে কীভাবে স্বাভাবিক আছে সবাই? না কি আমি ভুল বুঝছি, সব ঠিকই আছে এ দেশের?

হতাশা প্রকাশ করে তিনি আরও লিখেছেন “বাংলাদেশকে তার জন্ম থেকে দেখছি। বাংলাদেশ এত খারাপ আর কখনোই ছিল না।”

হত্যাকারীদের আটকের আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সাবেক কর্মী জুলহাস মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব তনয়কে হত্যার কঠোর নিন্দা জানিয়ে খুনিদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট।

রোববার এ হত্যাকাণ্ডের কয়েকঘণ্টার পরেই ঢাকার মার্কিন দূতাবাস থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট সরকারের প্রতি এ আহ্বান জানান।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন,  জুলহাস মান্নানের মতো আরেক তরুণ বাংলাদেশির নৃশংস হত্যাকাণ্ডের আমি মর্মাহত। এ কাণ্ডজ্ঞানহীন আক্রমণকে ঘৃণা জানাই। হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি দিতে বাংলাদেশ সরকারকে আহ্বান জানাই।”

এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে এই জোড়া হত্যাকাণ্ডের জড়িতদের ধরার বিষয়ে আশ্বাস পাওয়া গেছে।

জুলহাস ও তার বন্ধুকে কুপিয়ে হত্যার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামাল গণমাধ্যমকে বলেছেন, “এটা অন্যরকম একটি ঘটনা। কিছু আলামত পাওয়া গেছে। আশা করছি, আমরা আসামিদের ধরে ফেলতে পারব।”

আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, “প্রত্যেকবার আমরা প্রমাণ করেছি, আইএস-টাইএস নয়,  দেশের  জঙ্গিরাই এসব করছে। এরা প্রাথমিক অবস্থায় ছিল ছাত্রশিবির, তারপর জেএমবি, তারপর হরকাতুল জিহাদ, তারপর আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, আনসার আল ইসলাম। এসব জঙ্গি সংগঠনগুলো একের পর এক তৈরি হয়েছে। আত্মপ্রকাশ করতে চেষ্টা করছে। আমরা নিয়ন্ত্রণ করেছি।”

জামায়াত-বিএনপিকে দায়ী করলেন প্রধানমন্ত্রী

কলাবাগানে এই জোড়া খুনের ঘটনাকে পরিকল্পিত উল্লেখ করে এ ঘটনার জন্য জামায়াত ও বিএনপিকে দায়ী করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য পরিকল্পিতভাবেই এসব ঘটানো হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।

সোমবার রাতে ৮টায় প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবনের আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বলেন, “এ জাতীয় হত্যাকাণ্ড সাধারণ আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিষয় নয়।  গুপ্তহত্যা কারা ঘটাচ্ছে সকলেই বোঝেন।

“নানারূপে বিএনপি-জামায়াত এগুলো করছে। গত নির্বাচনের সময় থেকে দেশকে অস্থিতিশীল করতে তারা মানুষ পুড়িয়ে মারাসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছে। এখন ব্যর্থ হয়ে গুপ্তহত্যা করছে,” বলেন প্রধানমন্ত্রী।

 

 

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।