আওয়ামী লীগের খালেক খুলনার মেয়র

কামরান রেজা চৌধুরী
ঢাকা
2018-05-15
Share
খুলনা পিটিআই কেন্দ্রে ভোট দেবার অপেক্ষায় নারী ভোটাররা। খুলনা পিটিআই কেন্দ্রে ভোট দেবার অপেক্ষায় নারী ভোটাররা। ১৫ মে ২০১৮।
বেনারনিউজ

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

মোট ২৮৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২৮৬টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, তালুকদার খালেক পেয়েছেন এক লাখ ৭৬ হাজার ৯০২ ভোট। বেসরকারি সময়, যমুনাসহ দেশের প্রায় সবকটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এই খবর জানিয়েছে।

খালেকের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) মনোনীত প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু পেয়েছেন এক লাখ আট হাজার ৯৫৬ ভোট। দুই প্রার্থীর মধ্যে ব্যবধান ৬৭ হাজার ৯৪৬ ভোট।

ভোট গ্রহণে অনিয়মের কারণে তিনটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। স্থানীয় সময় রাত এগারোটায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত, নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেনি।

ভোট চলাকালীন বিএনপি অভিযোগ করে বলেছে, পুলিশের সহায়তায় ক্ষমতাসীন দল বিরোধী দলের নির্বাচনী এজেন্টদের বের করে জাল ভোট দিয়েছে।

তবে নির্বাচন কমিশন খুলনা সিটি নির্বাচনকে ‘সুন্দর ও চমৎকার’ বলে অভিহিত করেছে। তারা বলেছে, বিএনপি’র অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয়।

খুলনা সিটির জয়, ডিসেম্বরে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে ক্ষমতাসীন দলের অবস্থান শক্ত করতে সাহায্য করবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. আতাউর রহমান বেনারকে বলেন, “যদিও এটি একটি স্থানীয় সরকার নির্বাচন, কিন্তু জাতীয় নির্বাচনের আগে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের একটি গুরুত্ব আছে। এই নির্বাচন দুই দলের জনপ্রিয়তা কেমন সেব্যাপারে জনগণকে একটি ধারণা দেবে।”

“আপাতদৃষ্টিতে আওয়ামী লীগ সরকার ও নির্বাচন কমিশন খুলনা সিটি নির্বাচন মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে শেষ করল,” যোগ করেন ড. আতাউর।

দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ মোট পাঁচজন প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিযোগিতা করেন।

মঙ্গলবার সকাল আটটা থেকে খুলনা সিটির ২৮৯টি কেন্দ্রে একযোগে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। চলে বিকার চারটা পর্যন্ত।

খুলনা সিটি করপোরেশনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন ও মহিলা ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন।

একত্রিশটি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ১৮৭ জন প্রার্থী অংশ নেন।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট হয় দুইটি কেন্দ্রে। ওই দুই কেন্দ্রে ভোটার ছিলেন প্রায় তিন হাজার।

ভোট চলাকালে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক সাংবাদিকদের বলেন, ভোট সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তিনি ভোটের যেকোনো ফলাফল মেনে নেবেন।

ভোটে জয়ী হওয়ার পর তিনি সাংবাদিকদের কাছে খুলনার জনগণকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, তিনি খুলনার মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করবেন।

কেন্দ্র দখলের অভিযোগ বিএনপি’র

খুলনায় বিএনপি’র প্রার্থী নজরুল ইসলাম ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করে সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি ভোট ডাকাতির অনুমান করেছিল। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের ভাষায় কথা বলেন না। তিনি বলেন, কমপক্ষে ৩০টি কেন্দ্র থেকে বিএনপি’র এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে।

তবে তিনি বলেন, নির্বাচনে অনিয়ম হলেও নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবেন।

সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। বিএনপি ঢাকায় দলীয় অফিসে দুই দফায় খুলনা সিটি নির্বাচনে অনিয়ম ও ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের বলেন, আওয়ামী লীগের লোকেরা ৩০টি কেন্দ্র দখল করে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দিয়ে জাল ভোট দিয়েছে।

রিজভী বলেন, “আমরা বিভিন্ন সূত্রে জেনেছি, বেলা ২টা ৩০ মিনিট থেকে ৪টায় ভোট শেষ হওয়া পর্যন্ত ভোট কেন্দ্রগুলোয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাহারায় নৌকার প্রার্থীর পক্ষে একচেটিয়া সিল মারার জন্য খুলনার পুলিশ কমিশনার নির্দেশ দিয়েছেন।”

রিজভী বলেন, “সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, নির্বাচন কমিশন ও আওয়ামী সশস্ত্র ক্যাডাররা একই নৌকার যাত্রী হওয়ায় ভোট ডাকাতির নির্বাচনকেই আদর্শ নির্বাচন বলে প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছে। সরকার অবৈধ বলেই বেআইনি কাজ করেও তাদের কোনো লজ্জা নেই।”

চমৎকার ভোট হয়েছে: নির্বাচন কমিশন

নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটগ্রহণ শেষে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, “কেসিসির ২৮৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩টিতে অনিয়মের কারণে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। বাকি ২৮৬টি কেন্দ্রে চমৎকার ভোট হয়েছে। শান্তিপূর্ণভাবে ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।”

গণমাধ্যমে বিভিন্ন কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ প্রসঙ্গে কমিশন সচিব বলেন, “আমরা সকাল থেকে নির্বাচন মনিটর করেছি। নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। সবক’টি টিভি চ্যানেল ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখেছি। যে অনিয়ম দেখানো হয়েছে, তা কেবল ওই স্থগিত হওয়া তিনটি কেন্দ্রের।”

হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, “কয়েকটি জায়গায় ভোট কেন্দ্রের বাইরে কিছু গোলযোগ বা বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেট গিয়ে তার ‍সুরাহা করেছেন।”

ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা ৩০টি কেন্দ্র দখল কেরে জাল ভোট দিয়েছে এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে কমিশন সচিব বলেন, “আমরা নির্বাচনী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে বিষয়টি খতিয়ে দেখেছি। এ ধরনের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি।”

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।

পুর্ণাঙ্গ আকারে দেখুন