আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর গাজীপুরের মেয়র

কামরান রেজা চৌধুরী
2018.06.26
ঢাকা
Share on WhatsApp
Share on WhatsApp
180626_Gazipur_election–1000.jpg গাজীপুর সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী ও বিজয়ী মেয়র জাহাঙ্গীর আলম কানাইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন। ২৬ জুন ২০১৮।
বেনারনিউজ

বিরোধীদলীয় প্রার্থীর ভোট জালিয়াতিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগের মধ্য দিয়ে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম। বিএনপি’র হাসান সরকারকে হারিয়ে তিনি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের দ্বিতীয় মেয়র নির্বাচিত হন।

২০১৩ সালে প্রথম নির্বাচনে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপির আব্দুল মান্নান। এবার বিএনপি প্রার্থী সেখানে হেরে গেলেন।

গাজীপুর সিটিতে মোট ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬।

বাংলাদেশ সময় রাত পৌনে বারোটায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মোট ৪২৫টি কেন্দ্রের মধ্য ২৬২টির বেসরকারি ফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে নৌকা প্রতীকের জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ২ লাখ ৮৬ হাজার ৪০০ ভোট। আর ধানের শীষ প্রতীকের হাসান সরকার পেয়েছেন ১ লাখ ৩৪ হাজার ৪৯০ ভোট।

‘সুষ্ঠু’ নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত করায় গাজীপুরবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন জাহাঙ্গীর আলম। অপরপক্ষে বিরোধীদলীয় প্রার্থী হাসান সরকার ভোটের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন ক্ষমতাসীনরা শতাধিক কেন্দ্রে দখল করে জাল ভোট দিয়ে জাহাঙ্গীর আলমকে বিজয়ী করেছে। তিনি গাজীপুর সিটি নির্বাচন বাতিলের দাবি জানান।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনের বছরে গত ১৩ মে অনুষ্ঠিত খুলনা সিটি নির্বাচনের পর গাজীপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জয়লাভ করলেন। সরেজমিন পরিদর্শন করা একাধিক সাংবাদিক জানান, ধরপাকড়ের আতঙ্কে আগেই একরকম মাঠছাড়া ছিলেন ধানের শীষের কর্মী-সমর্থকেরা। দিন গড়াতেই সব কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ চলে যায় নৌকার সমর্থকদের হাতে।

অনিয়মের অভিযোগ

মঙ্গলবার সকাল আটটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলে। দুপুর একটায় জয়দেবপুরে গাজীপুর জেলা বিএনপি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন বন্ধের দাবি জানান বিএনপির হাসান সরকার।

বঙ্গতাজ অডিটোরিয়ামে স্থাপিত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে ভোট বন্ধের দাবি সংবলিত লিখিত অভিযোগটি হস্তান্তর করেন হাসান সরকার। বেরিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “শতাধিক কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। অনেককে মারপিট করেছে সরকারি দলের লোকেরা। সেখানে সিল মারা ও জাল ভোট দেওয়া হয়েছে।”

তিনি বলেন, “এসব অনিয়মের কারণে আমি এই নির্বাচন বন্ধের জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানাচ্ছি। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিচ্ছি।”

নির্বাচন বর্জন করবেন না ঘোষণা দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “নির্বাচন বর্জনের প্রশ্নই আসে না। আমি শেষ পর্যন্ত লড়াই করব। জনগণকে এবং বিশ্ববাসীকে এসব অনিয়ম জানাতেই আমি ভোট বর্জন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করেন, শতাধিক কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া জালভোট ও সিল মারার মহোৎসব চলছে।

তবে আওয়ামী লীগ ভোট জালিয়াতির অভিযোগ অস্বীকার করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, দলীয় কোন্দল ও প্রার্থীর দুর্বলতার কারণে গাজীপুরের অনেক কেন্দ্রে বিএনপির এজেন্ট উপস্থিত হতে পারেননি।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের পক্ষে প্রধান সমন্বয়ক নানক বলেন, কেন্দ্রে এজেন্টদের আসতে দেওয়া হয়নি, বাধা দেওয়া হয়েছে-এসব অভিযোগ ঠিক নয়।

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিকারের জন্য মঙ্গলবার দুপুরে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় নির্বাচন ভবনে গিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার নুরুল হুদার সাথে সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

বৈঠক শেষে বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সাংবাদিকদের বলেন, “খুলনা সিটি নির্বাচনের মতো গাজীপুর সিটি নির্বাচনের শুরু থেকেই সেখানকার পুলিশ সুপারকে আমরা প্রত্যাহার করতে বলেছিলাম। কিন্তু তাঁরা আমলে নেননি।”

“গাজীপুরের পুলিশ সুপার, তাঁর নেতৃত্বে জ্যাকেট পরা ডিবি পুলিশ সেখানে আজকে চূড়ান্ত রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে। আমাদের অভিযোগ গাজীপুরের রিটার্নিং ও প্রিসাইডিং অফিসারকে জানিয়েছি। সে কথাটিই মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে জানিয়েছি,” বলেন আলাল।

বিএনপি ইসির কাছে সহায়তা পাচ্ছে না অভিযোগ করে আলাল বলেন, “ইসির মোবাইল টিম, মনিটরিং টিম থেকে আমরা কোনো সহযোগিতা পাইনি।” তিনি বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কথায় আশ্বস্ত হতে পারেনি বিএনপি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিক্যাল সায়েন্স বিভাগের শিক্ষক ড. শান্তনু মজুমদার বেনারকে বলেন, এ বছর যে সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে বা হবে সেগুলো হলো জাতীয় নির্বাচনের আগে শেষ স্থানীয় নির্বাচন। এই নির্বাচন সরকারের জনপ্রিয়তা নির্দেশ করবে।

তিনি বলেন, এই সকল নির্বাচনে আওয়ামী লীগ চাইবে না এমন অবস্থা হোক যে জাতীয় নির্বাচনের আগে তাদের বদনাম হয়। জনগণের কাছে এই ধারণা না হয় যে, আওয়ামী লীগের আমলে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আবার তারা চাইবে না যে তাদের প্রার্থী সব ভোটে হেরে যাক।

ড. মজুমদার বলেন, পক্ষান্তরে বিএনপি’র হারানোর কিছু নাই। তাদের প্রার্থী জয়ী হলে তাদের লাভ। আবার পরাজিত হলে তারা সেই পুরোনো অভিযোগ করবে ‘নির্বাচনে জালিয়াতি হয়েছে’। তবে দেশের মানুষ জানে যে বিরোধী দল সব সময়ে এ ধরনের অভিযোগ করে।

জালভোট দেওয়া ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে নয়টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিবউদ্দীন মণ্ডল।

গাজীপুর সিটি নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ। ভোট গ্রহণ শেষে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, গাজীপুরের নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে। ৪২৫টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত ৯টি কেন্দ্রে অচিরেই নির্বাচন হবে।

মন্তব্য করুন

নীচের ফর্মে আপনার মন্তব্য যোগ করে টেক্সট লিখুন। একজন মডারেটর মন্তব্য সমূহ এপ্রুভ করে থাকেন এবং সঠিক সংবাদর নীতিমালা অনুসারে এডিট করে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে মন্তব্য প্রকাশ হয় না, প্রকাশিত কোনো মতামতের জন্য সঠিক সংবাদ দায়ী নয়। অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হোন এবং বিষয় বস্তুর প্রতি আবদ্ধ থাকুন।